সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল | ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

‘মা” সুপারি, ডিম বিক্রি করে ক্রিকেট বল কেনার টাকা দিতেন হ্যাপিকে

ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी ဗမာစာ ဗမာစာ

এগারো সন্তানের জননী হাওয়া খাতুন ক্রিকেট খেলা বুঝতেন না। তবে মা হিসেবে ঠিকই জানতেন সন্তানদের আগ্রহ কীসে। ছোট মেয়ে মুর্শিদা খাতুন হ্যাপি যে শৈশবেই ক্রিকেটে মন-প্রাণ সঁপে দিয়েছেন, সেটি উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন বেশ।

খেলার জন্য মুর্শিদার আকুতি ছুঁয়েছিল মায়ের হৃদয়। পরিবারের সবাই যখন খেলতে বাধা দিচ্ছিল, মা নীরবে যুগিয়েছেন উৎসাহ। গোপনে সুপারি, ডিম বিক্রি করে মেয়েকে দিতেন বল কেনার টাকা। কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার থানাপাড়ার বাসা থেকে মুর্শিদা যখন মুঠোফোনে ছোটবেলার কথা বলছিলে, বারবারই উঠে আসছিল মমতাময়ী মায়ের প্রসঙ্গ।
এলাকার ছেলেদের সঙ্গে মুর্শিদা ক্রিকেট খেলা শুরু করেন যখন ক্লাস থ্রি’তে পড়েন। শিশুকালেই মা’কে বোঝাতেন, ‘দেখো একদিন বড় ক্রিকেটার হবো। আমাকে খেলার সুযোগ করে দাও।’ কথা রেখেছেন মুর্শিদা। বাংলাদেশ নারী দলের দক্ষ ওপেনার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন নিজেকে।

সূত্র: চ্যানেল আই অনলাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *