বুধবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল | ১৭ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

ফাইনালের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখলো মাহমুদউল্লাহর দল

ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी ဗမာစာ ဗမာစာ

চট্টলাবাংলা ক্রীড়া রিপোর্ট:: 

ফাইনালের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখতে তামিম একাদশের বিপক্ষে ম্যাচে জয়ের বিকল্প ছিল না মাহমদউল্লাহ একাদশের। এমন সমীকরণের ম্যাচে ব্যাটে-বলে-ফিল্ডিংয়ে জ্বলে উঠেছে পুরো দল। দলগত পারফরম্যান্সেই তামিম একাদশকে ৪ উইকেটে হারিয়ে দিয়েছে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ম্যাচ শেষে সবগুলো পুরস্কারই গেছে মাহমুদউল্লাহর দলের ক্রিকেটারদের হাতে।তামিম একাদশের দেওয়া ২২২ রানের জবাবে খেলতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে মাহমুদউল্লাহর দল। আট রানে ২ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়া দলকে টেনে তোলেন মাহমুদুল-ইমরুল জুটি। তৃতীয় উইকেটে এ দুইজন যোগ করেন ৮৪ রান। ৫৫ বলে ৭ চারে ৪৯ রানে খালেদের শিকারে পরিণত হন ইমরুল। এরপর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহকে সঙ্গে করে পঞ্চম উইকেটে মাহমুদুল গড়েন আরও ৫৬ রানের জুটি। বাঁহাতি স্পিনার তাইজুলের ঘূর্ণিতে ১০১ বলে ৬ চারে ৫৮ রান করে বিদায় নেন যুব বিশ্বকাপজয়ী ব্যাটসম্যান। তবে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান আসে অধিনায়কের ব্যাট থেকে। ৮৭ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৬৭ রান করে বিদায় নেন মাহমুদউল্লাহ। তার বিদায়ে অবশ্য দলের জয়ে কোনও প্রভাব পড়েনি। বাকি কাজটুকু মসৃনভাবে শেষ করেন নুরুল হাসান (২৬)।তামিম একাদশের বোলারদের মধ্যে ৪৯ রান খরচায় তিনটি উইকেট নেন সাইফউদ্দিন। এছাড়া মোস্তাফিজ, খালেদ ও তাইজুল নিয়েছেন একটি করে উইকেট। এর আগে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে রুবেল হোসেনের আগুনে বোলিংয়ের সামনে ঝরঝর করে ভেঙে পড়েছে তামিম একাদশের টপ অর্ডার। ১৭ রানে ৪ উইকেট হারানোর পরও মিডল অর্ডার ও লেট অর্ডারের ব্যাটিংয়ে মাহমুদউল্লাহ একাদশের বিপক্ষে ৮ উইকেটে ২২১ রান করতে পারেন তামিমরা।টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে রুবেল ও আবু হায়দারের গতির সামনে বিপর্যস্ত হয়েছেন তামিম একাদশের ব্যাটসম্যানরা। ১৭ রানে টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যান তামিম, তানজিদ তামিম, এনামুল হক ও মোহাম্মদ মিঠুন ফিরে যান। কিন্তু পঞ্চম উইকেটে ইয়াসির আলী ও মাহিদুল ইসলাম গড়েন ১১১ রানের জুটি । ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হওয়ার আগে ৮১ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ইয়াসির ৬২ রানের ইনিংস খেলেন। মাহিদুল খেলেন ৫৭ রানের ইনিংস। ১১০ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় নিজের ইনিংসটি সাজিয়েছেন এই উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান। পরে মোসাদ্দেকের ৩৯ বলে ৪০ ও সাইফউদ্দিনের ২৯ বলে ৩৮ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে ২২১ রান সংগ্রহ করে তামিম একাদশ।রুবেল আগুন ঝরিয়েছেন বোলিংয়ে। ১০ ওভারে ৩ মেডেন দিয়ে ৩৪ রান খরচায় পেয়েছেন ৪ উইকেট। রুবেলই তামিম একাদশের টপ অর্ডারের মেরুদণ্ড ভেঙে দেন। এছাড়া ইবাদত হোসেন ৬০ রানে ২টি ও আবু হায়দার ৪০ রানে পেয়েছেন এক উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
তামিম একাদশ: ৫০ ওভারে ২২১/৮ (ইয়াসির ৬২, মাহিদুল ৫৭, মোসাদ্দেক ৪০, সাইফউদ্দিন ৩৮, তামিম ৯; রুবেল ৪/৩৪, ইবাদত ২/৬০, আবু হায়দার ১/৪০)

মাহমুদউল্লাহ একাদশ: ৪৯.১ ওভার ২২২/৬ (মাহমুদউল্লাহ ৬৭, মাহমুদুল ৫৮, ইমরুল ৪৯, নুরুল ২৬; সাইফউদ্দিন ৩/৪৯, মোস্তাফিজ ১/৫৩, খালেদ ১/৩৯, তাইজুল ১/৪০)

ফল: মাহমুদউল্লাহ একাদশ ৪ উইকেটে জয়ী,
ম্যান অব দ্য ম্যাচ ও ম্যাচের সেরা বোলার: রুবেল হোসেন,
সেরা ফিল্ডার: লিটন দাস,
সেরা ব্যাটসম্যান: মাহমুদুল হাসান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *