সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল | ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

কর্ণফুলীতে একই পরিবারের তিনজন করোনায় আক্রান্ত

ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी ဗမာစာ ဗမာစာ

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো:

কর্ণফুলী উপজেলার চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের একটি পরিবারের তিনজন করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী। পাশাপাশি আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউন সম্পন্ন করলেন কর্ণফুলী থানা পুলিশ।

করোনা পজিটিভ আসা তিনজন হলেন কর্ণফুলী থানাধীন চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড এর সুকেন্দ্র বাবু বাড়ির ৬৫ বছর বয়সি মহিলা, মহিলার ছেলে বয়স ৩৫ এবং ২৪ বছর বয়সি তার ছেলের বউ করোনায় আক্রান্ত হলেন। সঙ্গতকারণে তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

তবে ঐ পরিবারের করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ সনাক্ত হওয়া যুবক মুঠোফোনে জানান, গত ২৯ মে তার বৃদ্ধ বাবা শ্বাস কষ্ট নিয়ে মারা যান। করোনা সন্দেহ থাকলেও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে তার পিতা করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। যার কারণে তারাও আজ সনাক্ত হলেন।

সকল রোগীর ক্ষেত্রেই খবর পাওয়ার সাথে সাথে স্বাস্থ্যবিভাগ ও পুলিশ বিভাগের লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মেনে লকডাউন করছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এরা নিজ বাসায় রয়েছেন। তবে প্রয়োজনে চিকিৎসার জন্য তাদের নগরীতে স্থানান্তর করা হবে বলে স্বাস্থ্যবিভাগ জানান।

জানা যায়, ২৮ শে এপ্রিল কর্ণফুলীতে প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হন ইছানগর গ্রামে ৬৩ বছর বয়সী এক মহিলা। যিনি আক্রান্ত হয়ে জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে মারা যান। এরপরে যথাক্রমে- চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে সৈন্যারটেক ডিভাইন ফ্যাক্টরীতে চাকরিরত ৩২ বছর বয়সী গার্মেন্টসকর্মী, শিকলবাহা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে ৩৫ বছর বয়সী যুবক, চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের খোয়াজনগর ৫নং ওয়ার্ডে ৯ বছর বয়সী শিশু, চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে গার্মেন্টসকর্মী ও অন্যজন সিএনজি চালাক, চরপাথরঘাটা ৩নং ওয়ার্ডে ২১ বছর বয়সী নারী গার্মেন্টসকর্মী, চরলক্ষ্যা ৭নং ওয়ার্ড ২৫ বছর বয়সী আরেক নারী গার্মেন্টসকর্মী, শিকলবাহা ২নং ওয়ার্ডে ৪২ বছর বয়সি পুরুষ, শাহমীরপুরে ৩০ বছর বয়সি যুবক। এভাবে কর্ণফুলী থানাধীন আনোয়ারার কিছু অংশসহ কোস্টগার্ড এবং বিএফডিসি মিলে উপজেলায় প্রায় ৬১ জনের মতো আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়। এরমধ্যে দুজনের মৃত্যু ঘটে। আক্রান্ত বাকি রোগীরা চিকিৎসাধীন কেউ তাদের নিজস্ব বাসায় বা শহরের হাসপাতালে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *