সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
মহেশখালী বাসির পক্ষ থেকে ওসি তদন্ত বাবুল অাজাদকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন চট্টলা বাংলা সম্পাদক শ.ম.গফুর’র বিজয় দিবসের বিজয়ের শুভেচ্ছা উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে আন্তর্জাতিক ক্রিমিনাল কোর্টের তিন আইনজীবি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া যায় ১০ হাজার টাকায়-বেকায়দায় স্থানীয়রা! টেকনাফে ১০ হাজার ইয়াবাসহ আটক-১ রামুতে ১৫ ডিসেম্বর থেকে ৭ দিনব্যাপি মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা শুরু খাগড়াছড়িতে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় সেনাবাহিনী কর্তৃক আবারও অস্ত্র উদ্ধার অপরাজিত রাজশাহী, জয় পায়নি সিলেট-রংপুর নবীন কর্মকর্তাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় প্রস্তুত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী রুপিয়া মাহবুবা রিফা’র কবিতা “অভিমানী আলাপন” খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ (মূল) চাঁদা আদায়কারী আটক শাহপরীরদ্বীপ-সেন্টমার্টিন বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন ভারতীয় সাতাঁরু মুকেশ
এনজিওর পরিচয়ে দেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা

এনজিওর পরিচয়ে দেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা

নিজস্ব প্রতিবেদক:: কক্সবাজারব্র উখিয়া-টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের চেকপোস্ট পারাপারে সহযোগিতা করছে দেশি-বিদেশী এনজিও সংস্থাগুলো। স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরে এমন অভিযোগ করে আসলেও প্রশাসন কার্যত কোন ভূমিকা রাখছে না বলে মনে করছেন সুশীল সমাজ। গত সোমবার চেকপোস্ট পার হয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় উখিয়ার কোটবাজার স্টেশন থেকে জনতা এক রোহিঙ্গাকে হাতেনাতে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ সময় রোহিঙ্গাটির হাতে ওয়ার্ল্ড ভিশন প্রদত্ত আইডি কার্ড ও UNHCR এর লগো খচিত ব্যাগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, উখিয়া-টেকনাফে মিয়ানমার থেকে আসা ১১ লাখেরও বেশি শরণার্থীদের সহয়োগীতার জন্য ৩৪ টি ক্যাম্পে দেশী বিদেশী শতাধিক এনজিও সংস্থা কাজ করছে। এসব এনজিও সংস্থাগুলো শুরু থেকে প্রত্যাবসান বিরোধীসহ দেশ বিরোধী নানা কার্যক্রম চালিয়ে আসার অভিযোগ রয়েছে।

এসব এনজিওগুলো রোহিঙ্গাদের ত্রান সহায়তার পাশাপাশি এনজিওতে চাকরি দিয়ে তাদের স্বাবলম্বীও করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এমন কি বিভিন্ন এনজিও সংস্থা নিজেদের লগো খচিত গাড়ীতে করে অনেক রোহিঙ্গাদের পালাতে সহযোগীতা করতে গিয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে হাতে ধরাও পড়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার কথা বলে প্রেসক্রিপশন দিয়ে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছে এসব এনজিও।এ তালিকায় রয়েছে WORLD VISION, UNHCR, MSF, DSK, WHO, WFP, DRC সহ INGO গুলো।

অধিকার বাস্তবায়ন কমিটি উখিয় ‘র সাধারণ সম্পাদক মন্জুর আলম শাহীন জানান, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত বিভিন্ন এনজিও গুলাে শরণার্থী আইন অমান্য করে রোহিঙ্গাদের চাকরি দিয়েছে। চাকরির পাশাপাশি স্ব-স্ব সংস্থার ভিজিভিলিটি (কার্ড) দিয়ে দেশে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে গিয়ে অবাধ চলাচলের লাইসেন্স দিচ্ছেন। এসব আইডি কার্ড দেখিয়ে তারা সহজে পার হয়ে যাচ্ছে চেকপোস্ট।

মরিচ্যা চেকপোস্টের এক কর্মকর্তা বলেন, প্রতি নিয়ত মরিচ্যা ও সোনার পাড়া চেকপোস্টে অসংখ্য রোহিঙ্গা ধরা পড়ছে। তাদেরকে আমরা থানায় প্রেরণ করি। অনেক সময় আমাদের বুঝতে কষ্ট হয় করা বাংলাদেশী, কারা রোহিঙ্গা। সবার কাধে ব্যাগ নিয়ে, গলায় কার্ড ঝুলিয়ে চলাফেরা করে। এনজিও সংস্থাগেুলো রোহিঙ্গাদের কার্ড দিয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে সমস্যা ফেলেছে বলে জানান। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল মনছুর চৌধুরী বলেন, প্রতিদিনই রোহিঙ্গা ধরা পড়ছে। সবার কাছে এনজিওর কার্ড পাওয়া যায়। তারা না ধরনের কথা বলে চেকপোস্ট পার হবার চেষ্টা করে। তাদের ধরে ক্যাম্পে পাঠানো হয়।

সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সাইটের কোন লিখা বিনা অনুমতিতে কপি করা আইনত অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। সিটিবি নিউজ ২০১৮-১৯ সম্পাদক কতৃক সর্বস্বত্ত সংরক্ষিত, নিবন্ধনের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত।
Desing & Developed BY MONTAKIM