মঙ্গলবার, ১৪ Jul ২০২০, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
নাইক্ষ্যংছড়ি প্রেসক্লাব সদস্যদের অনুমতি ছাড়া সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটিতে নাম ব্যবহারে তীব্র প্রতিবাদ করোনা মোকাবিলা খাতে সমাজ সেবক আজিজের ৬ লক্ষ টাকার চেক প্রদান বড়উঠানে ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১, আহত-২ টেকনাফের হ্নীলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক দোকান কর্মচারীর মৃত্যু সেই শিকল বন্ধি আদিদবাসী নারীর চিকিৎসাসহ ভাতার ব্যবস্থা করলেন শেরপুরের জেলা প্রশাসক হােয়াইক্যংয়ে র‌্যাবের অভিযানে ৩ লক্ষ ইয়াবাসহ আটক-২ আলীকদমে গরীব দুঃস্থদের মাঝে সেনাবাহিনীর ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত বড় মহেশখালীতে পুলিশের অভিযানে চোলাই মদ সহ আটক-২ অাশু বড়ুয়ার কবিতা “কেউ ভাল নেই” উখিয়ায় এক স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার! হত্যা না আত্নহত্যা প্রশ্নবিদ্ধ প্রাণনাশের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন চান্দগাঁও এর ইজিলোড ব্যবসায়ি আরশাদ!
আবারো রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ!

আবারো রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ!

কায়সার হামিদ মানিক,উখিয়া::
মিয়ানমারে দুই বছর সাজা ভোগের পর ৪ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে। শনিবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে তারা টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের নাজিরপাড়া দিয়ে প্রবেশ করে বলে খবর পাওয়া গেছে। অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা উখিয়ার কুতুপালং মেগা ক্যাম্পে স্বজনদের কাছে আশ্রয় নিয়েছে। এ ধরনের কারামুক্ত আরো ৬১ জন রোহিঙ্গা অর্থাভাবে রাখাইন রাজধানী সিট্টুয়েতে আটকা পড়েছে বলেও জানা গেছে।
কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা মেগা ৫ নং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার নুরুল আলম ৪ রোহিঙ্গা প্রবেশের সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট ঘটনার সময় রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ব্যাপক ধরপাকড় চালিয়েছিল। সে সময় রাখাইনের রাচিডং টাউনশিপের রাজার বিল ইউনিয়নের উপরের পাড়া গ্রাম থেকে অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গাকে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়।
মাস্টার নুরুল আলম রাচিডং টাউনশিপের স্থানীয় প্রভাবশালী। তিনি জানান, গত ১২ অক্টোবর দুই বছর কারাভোগের পর ৪ রোহিঙ্গাকে মুক্তি দেয়া হয় রাখাইন প্রদেশের রাজধানী সিট্রুয়ের আকিয়াব কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে। কিন্তু রাখাইনে তাদের গ্রাম ও আশপাশে কোনো রোহিঙ্গার অবস্থান না থাকায় এই ৪ জন বাংলাদেশের ক্যাম্পে তাদের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করে চলে আসে।
অনুপ্রবেশকারী ৪ রোহিঙ্গার মধ্যে কুতুপালং-৫ নং ক্যাম্পের হাবিবুল্লাহর দুই ছেলে হামিদ হোসেন (২৫) ও ইমাম হোসেন (২৮)। অপর দুজনের মধ্যে কুতুপালং-১ ইস্ট ক্যাম্পের মো. শফির ছেলে এনায়েত উল্লাহ (২৭) ও ক্যাম্প-১৩ এর জালাল আহমদের ছেলে ইউসুফ আলী (২২) বলে জানা গেছে। তিনি আরও জানান, শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) আকিয়াবের কেন্দ্রীয় গারদ থেকে আরো ৬১ জনকে সাজা ভোগের পর মুক্তি দিয়েছে।
তাদের মধ্য রাচিডংয়ের চৌপ্রাং গ্রামের ৪৯ জন ও রাজারবিল গ্রামের ১২ জন। তারা অর্থাভাবে আকিয়াব থেকে মংডু সীমান্তে আসতে পারছে না বলে তিনি জানিয়েছেন। তারা আকিয়াবে অনাহারে রয়েছে। আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটির কাছে এসব রোহিঙ্গাকে পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন বলে ওই রোহিঙ্গা নেতা জানান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক্যাম্পের জনৈক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, এ ধরনের সংবাদ তাদের কাছে নেই।

সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সাইটের কোন লিখা বিনা অনুমতিতে কপি করা আইনত অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। সিটিবি নিউজ ২০১৮-১৯ সম্পাদক কতৃক সর্বস্বত্ত সংরক্ষিত, নিবন্ধনের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত।
Desing & Developed BY MONTAKIM